সোনাইমুড়ীতে কথিত বন্দুকযুদ্ধে যুবক নিহত, পুলিশ বলছে ডাকাত

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে পুলিশের সাথে কথিত বন্দুক যুদ্ধে মোখলেছুর রহমান সুভল (৩৮) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। পুলিশ বলছে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে টহল পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে ডাকাত সর্দার সুভল নিহত হয়েছে। এসময় দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার নাটেশ্বর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, তিন রাউন্ড গুলি, একটি ব্যবহৃত গুলির খোসা ও তিনটি বড় চাপাতি উদ্ধার করা হয়।

শুক্রবার সকালে নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহত মোখলেছুর রহমান সুভল বেগমগঞ্জ উপজেলার দূর্গাপুর এলাকার ইসহাক মিয়ার ছেলে। আহত পুলিশ সদস্যরা হচ্ছেন, কনেস্টবল শাহেদ ও হাবিবুর রহমান।

পুলিশ জানায়, রাতে বেগমগঞ্জ-সোনাইমুড়ী উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকায় সোনাইমুড়ী থানার একদল পুলিশ টহল দিচ্ছিলো। বৃহস্পতিবার রাত ১টার দিকে তারা গাড়ী নিয়ে পূর্ব নাটেশ্বর এলাকায় টহল দেওয়ার সময় কিছু বুঝে উঠার আগে একদল ডাকাত তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়তে থাকে। এসময় আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুঁড়লে তাদের সাথে মুখোমুখি গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে। এসময় দুই পুলিশ সদস্য আহত ও গুলিবিদ্ধ হয়ে ডাকাত সর্দার মোখলেছুর রহমান সুভল ঘটনাস্থলে নিহত হয়। অবস্থা বেগতিক দেখে সুভলের সহযোগিরা দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, তিন রাউন্ড গুলি, একটি ব্যবহৃত গুলির খোসা ও তিনটি বড় চাপাতি উদ্ধার করা হয়।

সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুস সামাদ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ডাকাত দল পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়লে পুলিশ আত্মরক্ষার্থে ১১রাউন্ড শর্টগান ও ৫রাউন্ড পিস্তলের গুল ছুঁড়ে। নিহত ডাকাত সর্দার সুভলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ঘটনায় ১১টি মামলা রয়েছে। সে দীর্ঘদিন কারাভোগের পর দিনের বেলায় এলাকায় আত্মগোপন করে থাকতো আর রাতে ডাকাতি করতো বলে জানার পুলিশের এ কর্মকর্তা। 

মন্তব্য লিখুন :