নিউইয়র্কে ক্ষুদে আঁকিয়েদের রংতুলিতে বাংলাদেশ

বিজয় দিবস মানেই অন্যকিছু। দেশকে জানা, নিজেকে দেশের জন্য নিবেদন করা। প্রবাস জীবনে বাংলাদেশীদের মেধা মননে জেগে ওঠে ত্রিশ লাখ শহীদ আর দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত লাল সবুজের বাংলাদেশ। বিদেশের মাটিতে জন্ম নেয়া কিংবা মায়ের কোলে চড়ে দেশ ছেড়ে আশা শিশু-কিশোরদের মাঝেও পূর্বপুরুষদের আত্মত্যাগে অর্জিত দেশ নিয়ে ভাবনা কম কিসে। রোববার বিকালে যেমনটি দেখা গেলো নিইউয়র্কের ব্রুকলিনের চার্চ-ম্যাকডোনাল্ডের নোয়াখালী ভবনে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠিত চিত্রাংকন প্রতিযোগীতায়। বাংলাদেশ সোসাইটি ইউএসএ ইনক্ এর ব্যাবস্থাপনায় পরিচালিত বাংলা স্কুলের আঁকিয়েদের রং-তুলিতে ফুটে উঠে বাংলাদেশ।

ছুটির দিন হওয়ায় শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি অভিভাবকদের আগমনও ছিলো চোখে পড়ার মতো। বাংলা স্কুলের সাড়ে ৩ বছর থেকে ১৩ বছর বয়সের শিক্ষার্থীদের প্রতিযোগীতার বিষয়ও ছিলো বাংলাদেশ। সাড়ে ৩ থেকে ৭ বছর এবং ৮ বছর থেকে ১৩ বছর এই দুটি বিভাগে ৩০জন শিক্ষার্থী অংশ নেন। তাঁদের রং তুলিতে ফুটে উঠে বাংলাদেশের ইতিহাস-ইতিহ্য। 

ক্লাসে যেভাবে বাংলাদেশকে জেনেছেন সেভাবেই মুক্তিযুদ্ধ, পতাকা, শহীদ মিনার, আবহমান বাংলাসহ নানান বিষয় আঁকেন তারা। রোববার বিকালে প্রতিযোগীতা চলাকালে বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী, সদস্য মাঈনুল উদ্দিন মাহবুব, আজাদ বাকেরসহ আগত অভিভাবকরা ক্ষুদে আঁকিয়েদের সাথে ছবি তোলেন। আগামি ২২ ডিসেম্বর কুইন্স প্যালেসে বাংলাদেশ সোসাইটির বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হবে। 

প্রতিযোগীতা চলাকালে বৃহত্তর নোয়াখালী সোসাইটি ইউএসএ ইনক্ এর সভাপতি নাজমুল হাসান মানিক এবং সাধারণ সম্পাদক জাহিদ মিন্টুসহ নেতৃবৃন্দও আসেন। তাঁরা শিক্ষার্থী ও  অভিাববকদের খোঁজখবর নেন।

শিশুদের দেশ ভাবনা এবং চিত্রাংকন প্রতযোগীতায় দেশকে ফুটিয়ে তোলা প্রসঙ্গে বাংলা স্কুলের শিক্ষক ফারজিন রাকিবা প্রবাসে নোয়াখালীকে বলেন- সারাবছর ক্লাসে শিক্ষার্থীদের ভাষা, ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সাংস্কৃতির নানা বিষয় শেখানো হয়ে থাকে। এরমধ্য দিয়ে তাঁরা বাংলাদেশকে ধারণ করে। প্রতিযোগীতায় তাঁরা যার যার মতো করে সেটি ফুঁটিয়ে তুলেছে। এখানে (নিউইয়র্কে) বেড়ে ওঠা নুতন প্রজন্ম বাংলাদেশ সম্পর্কে জানে, মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানার আগ্রহ রাখে। এটি অনেক বড় বিষয়। এক্ষেত্রে অভিভাবকদের আগ্রহ এবং শেখার সুযোগও একটা বড় ব্যাপার।

বাংলাদেশ সোসাইটি ইউএসএ ইনক্ এর সদস্য মাঈনুল উদ্দিন মাহবুব জানান- ব্রুকলিনের স্কুলটি নোয়াখালী ভবনে পরিচলিত হয়। একইভাবে কুইন্সেও আরেকটি বাংলা স্কুল রয়েছে। ২২ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সোসাইটির বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে দুটি স্কুলেরই বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন :