চিরনিদ্রায় শায়িত নিউইয়র্কে কমিউনিটির প্রিয়মুখ আব্দুল খালেক খায়ের

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন নিউইয়র্কে প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রিয়মুখ প্রবাসীদের আম্রেলা সংগঠন খ্যাত বাংলাদেশ সোসাইটির সহ-সভাপতি আব্দুল খালেক খায়ের। মঙ্গলবার বিকালে লং আইল্যান্ডের ওয়াশিংটন মেমোরিয়ালে দ্বিতীয় নামাজে জানাযা শেষে তাঁকে দাফন করা হয়। এরআগে সকাল ১১টায় নিউইয়র্ক সিটির কুইন্সের এলমহার্স্টে মসজিদ আল তৌফিক চত্বরে প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার সন্ধ্যা ৭টা ৫ মিনিটে মৃত্যুবরণ করেন নোয়াখালীর কৃতি সন্তান সদা হাস্যোজ্জ্বল পরোপকারী আব্দুল খালেক খায়ের (ইন্নালিল্লাহে.....রাজেউন)। তাঁর মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে রাতেই বাংলাদেশ সোসাইটি, বৃহত্তর নোয়াখালী সোসাইটিসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ হাসপাতালে ছুটে যান। শোকের ছায়া নেমে আসে কমিউনিটিতে, দীর্ঘদিনের সাংগঠনিক সহযোদ্ধাদের অনেকেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও তাঁর মৃত্যুর খবর ব্যাপক প্রচার পায়, সাধারণ মানুষ তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। 

মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৬৩ বছর। তিনি স্ত্রী, একছেলে ও দুই কন্যাসহ আত্মীয়-স্বজন ও কমিউিনিটর কল্যাণে কাজ করা অসংখ্য সহযোদ্ধা রেখে গেছেন।

মঙ্গলবার সকালে জানাযার পূর্বে মরহুম আব্দুল খালেক খায়েরের মরদেহ এলমহার্স্টের বাসার সামনে নেওয়া হলে পরিবারের সদস্যসহ উপস্থিত মুসুল্লীরা শেষবারের মতো দেখেন এবং শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। এসময় বাংলাদেশ সোসাইটির কার্যনির্বাহী কমিটি ও ট্রাস্টি বোর্ডের প্রায় সকল সদস্য উপস্থিত ছিলেন। বৃহত্তর নোয়াখালী সোসাইটি ও বৃহত্তর বেগমগঞ্জ সোসাইটির কার্যনির্বাহী কমিটি, উপদেষ্টা পরিষদ ও ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্যবৃন্দও উপস্থিত ছিলেন। 

বাসার পাশ্ববর্তী মসজদি আল তৌফিক চত্বরে জানাযা শেষে মরদেহ নেওয়া হয় লংআইল্যান্ডের ওয়াশিংটন মেমোরিয়ালে। সেখানে দ্বিতীয় জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন হয়। এখানেও বাংলাদেশ সোসাইটি, বৃহত্তর নোয়াখালী সোসাইটি ও বৃহত্তর বেগমগঞ্জ সোসাইটির নেতৃবৃন্দ ছাড়াও আত্মীয়-স্বজন ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেৃতৃবন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মরহুম আব্দুল খালেক খায়েরের বাড়ি নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর গ্রামে। সোনালী ভবিষ্যৎ গড়তে আশির দশকে আসেন যুক্তরাষ্ট্রে। নিজ এলাকার প্রবাসীদের কল্যাণে আঞ্চলিক সংগঠন গড়ে তোলার অগ্রপথিক ছিলেন তিনি। বৃহত্তর বেগমগঞ্জ সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন, বর্তমানে ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান। বৃহত্তর নোয়াখালী সোসাইটির উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ছিলেন। ২০১৬ সাল থেকে তিনি প্রবাসীদের সর্ববৃহৎ সংগঠন বাংলাদেশ সোসাইটি ইউএএস’র সহ-সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

প্রসঙ্গত ঃ করোনা সংক্রমিত হয়ে বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমদে এবং সদস্য আজাদ বাকের মৃত্যুবরণ করেন। তাঁদের দুইজনকেও ওয়াশিংটন মেমোরিয়ালে দাফন করা হয়েছিলো।


মন্তব্য লিখুন :