নোয়াখালীর সিভিল সার্জন অফিস লকডাউন ?

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ৬ কর্মচারীসহ আক্রান্ত ৩৬

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ৬কর্মচারীসহ নোয়াখালীতে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৩৬জন। এনিয়ে জেলায় মোট করোনায় আক্রান্ত ২৬৩জন। ঘটনায় আনুষ্ঠানিকভাবে জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় লকডাউন ঘোষনা না করলেও দাপ্তরিক সকল কার্যক্রম বাসায় থেকে করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নোয়াখালী সিভিল সার্জন ডা. মো মোমিনুর রহমান। 

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৩৬জন। যার মধ্যে জেলার কবিরহাট উপজেলায় ১৮জন, বেগমগঞ্জে ৬জন, সদরে ১, কোম্পানীগঞ্জে ২, সুবর্ণচরে ৩জন ও জেলা সিভিল সার্জন অফিসে ৬জন।

কবিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. ফজলুল হক বাকের অপু বলেন, উপজেলায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন আরও ১৮জন। যার মধ্যে বাটইয়া ইউনিয়নে ১০, নরোত্তমপুর ইউনিয়নে ৭ ও ঘোষবাগ ইউনিয়নে ১জন রয়েছে। আক্রান্তদের বাড়ী লকডাউন ঘোষণা করে তাদের শারীরিক অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আইসোলেশনের ব্যবস্থা করা হবে। 

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. সেলিম জানান, কোম্পানীগঞ্জের সিরাজপুর ইউনিয়নে একজন ও চরপাবর্তী ইউনিয়নে একজন পুরুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের বাড়ী লকডাউন ঘোষনা করে তাদের আইসোলেশনের ব্যবস্থা করা হবে। উপজেলায় মোট আক্রান্ত ৭জন।

সুবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সায়েলা সুলতানা ঝুমা বলেন, উপজেলায় নতুন করে আরও তিনজনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। যার মধ্যে চরজব্বার ইউনিয়নের ১ ও চরক্লার্কের ২জন রয়েছে। এদের মধ্যে দুইজন পুরুষ ও একজন মহিলা। উপজেলায় মোট আক্রান্ত ৮জন।

সিভিল সার্জন ডা. মো মোমিনুর রহমান বলেন, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আসা রিপোর্টে আমাদের কার্যালয়ের ৬জন কর্মচারীর নমুনা পজিটিভ এসেছে। অফিসের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

এক প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, অফিসের দাপ্তরিক সকল কার্যক্রম বাসা থেকে করা হবে। অফিস লকডাউনেরমত থাকবে।    

উপজেলা ভিত্তিক আক্রান্তের সংখ্যাঃ

জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৬৩জন। বেগমগঞ্জে ১২৯জন, সদরে ২৭জন, কবিরহাটে ৩৮, চাটখিলে ২০, সোনাইমুড়ীতে ১৫জন, হাতিয়ায় ৬জন, সেনবাগে ৭জন, কোম্পানীগঞ্জ ৭, সুবর্ণচর উপজেলায় ৮ ও সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ৬জন। এদের মধ্যে মারা গেছেন, সোনাইমুড়ীতে মোরশেদ আলম (৪৫) নামে এক ইতালি প্রবাসী, সেনবাগে এক রাজমেস্ত্রী মো. আক্কাস (৪৮), বেগমগঞ্জে তারেক হোসেন (৩০) নামের এক ব্যবসায়ী ও সোনাইমুড়ীতে ফখরুল ইসলাম বাচ্চু (৫৯) নামের এক কৃষক। সুস্থ হয়েছেন ২৭জন।


মন্তব্য লিখুন :