হাতিয়ায় বিশেষায়িত আইসোলেসন ইউনিট চালু

নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় দুটি অক্সিজেন কন্টেইনজেটর মেশিন, ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবারহ, দশহাজার লিটারের দশটি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও জরুরী ঔষধসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা নিয়ে চালু হয়েছে ১৫ শয্যার বিষেশায়িত আইসোলেশন ইউনিট। রবিবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তৃতীয় তলায় এ ইউনিটের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। 

সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ আলীর আর্থিক সহযোগীতায়  হাতিয়ায় অব্যাহত ভাবে  করোনা রোগী বেড়ে যাওয়ায় সংকটাপন্ন রোগীদের জন্য এই বিশেষায়িত আইসোলেসন ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য বিধি মেনে উদ্বোধন করেন সাবেক সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মোহাম্মদ আলী।

এ উপলক্ষ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হল রুমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। মেডিকেল অফিসার ডাক্তার নিজাম উদ্দন মিজানের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব মোরশেদ লিটন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো রেজাউল করিম, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নাজিম উদ্দিন। উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার ভুমি সারোয়ার সালাম, পৌর মেয়র একেএম ইউছুফ আলী, উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক মহি উদ্দিন আহম্মেদ, হাতিয়া বারের সভাপতি এ্যাডভোকেট সাজ্জদ হোসেন, সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট ছাইফুদ্দিন আহম্মেদসহ সাংবাদিক, ডাক্তার, বিভিন্ন সংঘঠনের নেতৃবৃন্ধ।

বক্তারা তাদের বক্তব্যে বলেন হাতিয়া একটি বিচ্ছিন্ন দ্বীপ হওয়ায় সংকাটাপন্ন রোগীদের চিকিৎসা দিতে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। বিশেষ করে অক্সিজেন সংকট অনেক বেশি ছিল। ইতিমধ্যে দুজন রোগীকে অক্সিজেনের অভাবে জেলা সদরে রেপার করতে হয়েছে। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক সংসদ মোহাম্মদ আলী বলেন প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশের এই মহামারি মোকাবিলায় আমরা কাজ করে যাচ্ছি। 

উল্লেখ্য হাতিয়াতে রবিবার পর্যন্ত ৫৬৯ জনের নমুনা পাঠানো হয়। এর মধ্যে ৫৫৩জনের নমুনার ফলাফল পাওয়া যায়। যাতে নতুন ৭জন সহ ৮৪জনের শরীরে করোনার উপস্থিতি পাওয়া যায়। এর মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ৫৩জনকে করোনা মুক্ত ঘোষনা করা হয়।

মন্তব্য লিখুন :